Fasal Sahayata Yojana 2024: বড় আপডেট, কৃষকদের অ্যাকাউন্টে ঢুকবে 10,000 টাকা, এইভাবে করুন আবেদন

Share:

Fasal Sahayata Yojana: সামনেই লোকসভা নির্বাচন। এই লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন রাজ্যের রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যেকেই নিয়ে আসছে একের পর এক প্রকল্প। যে প্রকল্পগুলির মাধ্যমে একাধিক সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

ADVERTISEMENTS

How to apply Fasal Sahayata Yojana 2024

শুধুমাত্র নতুন প্রকল্পের উদ্বোধন নয়, বিভিন্ন রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকার ইতিমধ্যেই রাজ্যে যে সমস্ত প্রকল্পগুলি চালু ছিল সেখানেও বেশ কিছু টাকা বাড়ানোর ঘোষণা করেছে।

সম্প্রতি ‘এই’ রাজ্যের সরকার কৃষকদের জন্য এমন প্রকল্পের ঘোষণা করেছে যেখানে কৃষকেরা পেয়ে যাবেন মোটা অংকের টাকা। এই প্রকল্প অনুযায়ী অমৌসুমী বৃষ্টি প্রাকৃতিক দুর্যোগ বিভিন্ন কারণে কৃষকদের যে ক্ষতি হয় তা রক্ষা করাই মূল উদ্দেশ্য। এই প্রকল্পের আওতায় রয়েছে কৃষকদের ফসল বীমা, প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় ফসলের ক্ষতি কমানো ইত্যাদি একাধিক সুবিধা।

প্রকল্পের নাম (Fasal Sahayata Yojana)

এই প্রকল্পের নামকরণ করা হয়েছে ফসল সহায়তা যোজনা (Fasal Sahayata Yojana)। এই প্রকল্পটি চালু হচ্ছে বিহার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে।

কারা কারা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন?

ঘোষণা অনুযায়ী, শুধুমাত্র বিহারের কৃষকরা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। খারিফ ২০২৩ মৌসুমের জন্য ইতিমধ্যেই অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। এর পাশাপাশি রাইত ও অরায়ত কৃষকরা এবং চাষিরা পেয়ে যাবেন এই প্রকল্পের সুবিধা।

ফসল সহায়তা প্রকল্প আসলে কী?

এই প্রকল্পের সুবিধা যদি আপনি পেতে চান তাহলে অবশ্যই আবেদন করতে হবে অনলাইনের মাধ্যমে (Fasal Sahayata Yojana)। বন্যা, খরা ইত্যাদির মতো কোনও প্রাকৃতিক দুর্যোগে যদি ফসলের ক্ষতি হয়ে যায় তাহলে প্রদান করা হবে কৃষকদের আর্থিক সহায়তা। প্রকল্প অনুযায়ী ২০% পর্যন্ত ক্ষতির ক্ষেত্রে কৃষকদের প্রতি হেক্টর ৭৫০০ টাকা করে দেওয়া হবে।

কোন ফসলের ওপর সুবিধা পাওয়া যাবে এই প্রকল্পের?

জানা যাচ্ছে, খারিফ ফসল যেমন ধান, ভুট্টা, সয়াবিন, আলু, বেগুন, টমেটো এবং বাঁধাকপি ইত্যাদি ফসলের ওপর পাওয়া যাবে এই প্রকল্পের সুবিধা।

এই স্কিমের শর্তগুলি কী?

এই স্কিমের শর্ত অনুযায়ী কৃষক প্রতি সর্বাধিক (Fasal Sahayata Yojana) দুই হেক্টরের জন্য প্রদান করা হবে আর্থিক সহায়তা। যেকোনো এলাকার কৃষক এই প্রকল্পের আওতায় পড়বেন।

কীভাবে কৃষকেরা নিজের ফসল বীমা চেক করবেন?

এই প্রকল্পে আবেদন করার পর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বীমা কোম্পানি সংশ্লিষ্ট ব্যাংক, স্থানীয় কৃষি বিভাগ সরকার কিংবা জেলা কর্তৃপক্ষকে টোল ফ্রি নাম্বার কিংবা জাতীয় ফসল বীমা পোর্টালের মাধ্যমে জানানো হবে।

কীভাবে আবেদন করবেন?

অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন (Fasal Sahayata Yojana)। হোমপেজে আসার পর ধাপে ধাপে ফিলাপ করতে হবে সমস্ত তথ্য। রেজিস্ট্রেশন ফর্ম সম্পূর্ণভাবে পূরণ করার পর সর্বশেষে নিজস্ব লগইন আইডি এবং পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হবে। রেজিস্টেশন সম্পূর্ণ হওয়ার পর বিহার স্ট্রেড ক্রপ অ্যাসিস্ট্যান্ট স্কিম এবং প্রোকিওরমেন্ট সমবায় বিভাগের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের হোমপেজে চলে আসতে হবে।

এখানেই আবেদনকারী পেয়ে যাবেন আবেদন করার বিকল্প। সেখানে প্রয়োজনীয় সমস্ত নথি স্ক্যান করতে হবে এবং আপলোড করতে হবে। অবশেষে আবেদনকারীকে সাবমিট বিকল্পে ক্লিক করতে হবে এরপর আবেদনকারী পেয়ে যাবেন একটি রশিদ।

যে কোনও প্রকার সহায়তার জন্য ইতিমধ্যেই চালু করা হয়েছে টোল ফ্রি নম্বর 180001800110। যদি কোনও মানুষ আবেদন করতে গিয়ে কোনও অসুবিধার সম্মুখীন হয় সে ক্ষেত্রে তিনি যোগাযোগ করতে পারবেন 180001800110 এই নম্বরে। এছাড়াও ব্লক সমবায় অফিসার কিংবা নির্বাহী সরকারি সাহায্য নিতে পারবেন।

কী কী প্রয়োজনীয় নথি লাগবে?

  • পাসপোর্ট সাইজ ছবি
  • সঠিক পরিচয় পত্র
  • ব্যাংকের পাস বই
  • আবাসিক প্রমাণ পত্র

সাধারণত অক্টোবর এবং নভেম্বর মাসে রবিশস্যর বীজ বপন করা হয়ে থাকে। এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত কাটা হয় এই ফসল। এই সময়ে যে সমস্ত জিনিস উৎপাদিত হয় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল গম, জব, আলু, ছোলা, মসুর ডাল, মটর ও সরিষা।

আরও খবর জানতে ফলো করুন আমাদের দৈনিক নিউজ বাংলাকে

Written By Tithi Adak

শেয়ার করুন: Sharing is Caring!

Leave a Comment